ব্যাংকিং খাতে সাইবার ঝুঁকি মোকাবেলায় সচেতনতার ওপর গুরুত্বারোপ

ঢাকা ১৫ অক্টোবর ২০১৯:

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম)  সাইবার সিকিউরিটি বিষয়ক সেমিনারে বক্তারা ব্যাংকিং খাতের সাইবার ঝুঁকি মোকাবেলায় সচেতনতার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। তারা বলেছেন, সাইবার ঝুঁকির একটি বড় কারণ ব্যবহারকারী। ব্যবহারকারীদের অসর্তকতার জন্য সাইবার হামলার ঘটনা ঘটছে। এজন্য ব্যাংকিং খাতের সাইবার ঝুঁকি মোকাবেলায় সচেতনতা বাড়াতে হবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর মিরপুরে বিআইবিএম অডিটোরিয়ামে ‘সাইবার সিকিউরিটি-ফার্স্ট রেসপন্ডার: থ্রেট ডিটেকশন অ্যান্ড রেসপন্স’ শীর্ষক সেমিনারে এ কথা বলেন তারা। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিআইবিএম-এর অধ্যাপক এবং পরিচালক (প্রশিক্ষণ)  ড.শাহ মো. আহসান হাবীব। সেমিনারের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং রিফর্মস অ্যাডভাইজর এস কে সুর চৌধুরী।

সভাপতিত্ব করেন বিআইবিএম-এর  ড. মোজাফফর আহমদ চেয়ার প্রফেসর এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. বরকত-এ-খোদা। বিআইবিএম এবং ডিজিএসইসি কাউন্সিল যৌথভাবে এ সেমিনারের আয়োজন করে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং রিফর্মস অ্যাডভাইজর এস কে সুর চৌধুরী বলেন, সাইবার থ্রেট ডিটেকশন হলো সাইবার ঝুঁকি খুজে বের করা এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া। বাংলাদেশ ব্যাংক সাইবার ঝুঁকির বিষয়ে খুবই সর্তক। এরই মধ্যে বেশ কিছু পদক্ষে নিয়েছে। ব্যাংকগুলোর জন্য এ সংক্রান্ত একটি গাইডলাইন তৈরি  করা হয়েছে।

সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন বিআইবিএম-এর সুপারনিউমারারি অধ্যাপক এবং  পূবালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক হেলাল আহমদ চৌধুরী;  বিআইবিএম-এর সাবেক সুপারনিউমারারি অধ্যাপক ইয়াছিন আলি; অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ এর মহাসচিব এবং ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড-এর প্রেসিডেন্ট ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আরফান আলী; ডিজিএসইসি কাউন্সিল-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মারুফ আহমেদ । সেমিনারে মূল গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চার্টনেক্সাস -এর প্রেসিডেন্ট জেফ ফেলিস এবং অ্যপাক-এর পরিচালক (প্রশিক্ষণ এবং পারামর্শ) দেশমন্দ দেভেন্দ্রন ।  -প্রেস বিজ্ঞপ্তি।